মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

বটতলী ফাতেমা জহুরা মহিলা ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসা

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

মরহুম আব্দুর রশিদ মন্ডল এর ঐকামিতক প্রচেষ্ঠায় ১৯৭৮ সালে মসজিদের এবতেদায়ী পর্যায়ের ক্লাস চালু করেন। পরে ১৯৮৪ সালে দাখিল পরীক্ষার অনুমতি সহ ১০ম শ্রেণী খোলার অনুমতি পায়। ১৯৮৬ সালে প্রথম স্বীকৃতি লাভ করে। মরহুম আব্দুর রশিদ মন্ডল ১৯/৩/১৯৮৮ তারিখে ইমেতকাল করিলে অধ্যক্ষ মুহাম্মদ বেলাল উদ্দিন আলিম-ফাজিল এবং কম্পিউটার সহ আলিম বিজ্ঞান খোলার অদম্য সাধনায় পর্যায়ক্রমে স্তর/শাখা সমুহ খোলেন। এ ছাড়া তিনি ফাজিল পর্যায়ে অনার্স কোর্স খোলার জন্যও প্রচেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠালগ্নে স্থায়ী সম্পদ দান করেন নিম্ন বর্ণিত বর্গঃ

০১। মরহুম আব্দুর রশিদ মন্ডল, গ্রাম-তিলাবদুল, জমির পরিমান-০৫ শতক।

০২। মোঃ আব্দুল আলিম মন্ডল, গ্রাম-তিলাবদুল, জমির পরিমান-০৫ শতক।

০৩। আলহাজ্ব লোকমান আলী মন্ডল, গ্রাম-তিলাবদুল

০৪। মোঃ আমিনুল হক, গ্রাম-তিলাবদুল                   জমির পরিমান-১৪.৪ শতক।

০৫। মোঃ আব্দুল আলিম মন্ডল, গ্রাম-তিলাবদুল

০৬। মোঃ আমিনুল হক, গ্রাম-তিলাবদুল

০৭। মোঃ আব্দুল আলিম মন্ডল, গ্রাম-তিলাবদুল               জমির পরিমান-১.০ শতক।

০৮। মোঃ আশরাফ আলী মন্ডল, গ্রাম-তিলাবদুল

০৯। মোঃ আকবর আলী সরদার, গ্রাম-তিলাবদুল, জমির পরিমান-০২ শতক।

১০। মোছাঃ দেলোযারা বিবি, গ্রাম-তিলাবদুল, জমির পরিমান-২.৫ শতক।

১১। মরহুম আব্দুর রশিদ মন্ডল, গ্রাম-তিলাবদুল, জমির পরিমান-১.১০ একর।

১২। মোঃ মহিউদ্দিন খান, গ্রাম-দাশড়া, জমির পরিমান-১৭ শতক।

১৩। মোঃ আলাউদ্দিন খান, গ্রাম-দাশড়া, জমির পরিমান-১৭ শতক।

১৪। মোঃ শরীফউদ্দিন, গ্রাম-ইকড়গাড়া, জমির পরিমান-১০ শতক।

১৫। মোঃ আব্দুল হামিদ, গ্রাম-দাশড়া, জমির পরিমান-১৭ শতক।

জমির পরিমান-৫০ শতক।

১৬। মোঃ হাসিবুল হাসান, গ্রাম-দাশড়া,

১৭। মোঃ শফিকুল ইসলাম, গ্রাম-দাশড়া,

       উল্লেখ্য যে, আলহাজ্ব লোকমান আলী উক্ত জমি সংগ্রহের জন্য অনুপ্রেরণা যোগায় হেতুই ব্যক্তিগণ উপরে বর্ণিত স্থায়ী সম্পদ হিসাবে জমি দান করেন। তৎসহ প্রত্যেক শিক্ষক-শিক্ষিকা ও কর্মচারী নিজ বেতন হতে প্রতিষ্ঠানটির বিল্ডিং  এবং আসবাবপত্র তৈরীর কাজে সহযোগিতা করে আসছেন। মাদ্রাসাটি এলাকার নারী শিক্ষার আলোক বর্তিক হিসাবে

জ্ঞানের আলো বিকিরণ করে আসছে। মাদ্রাসারমৌজাটি তিলাবদুল, তবে ১৩৪৯ সালে প্রবল বন্যার পানিতে তুলশীগঙ্গা নদীর তীরে উক্ত তিলাবদুল (পোয়ামারী হাটে)৪টি বটের গাছ গজে উঠলে এবং গাছগুলি বৃহৎ আকার ধারন করলে জনগণের মুখে মুখে চলতে থাকে হাটটির নাম- ‘বটতলী হাট’। উক্ত হাটের নামে মাদ্রাসাটির নাম ‘‘বটতলী ফাতেমা জহুরা মহিলা ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসা’’-র নাম করন করা হয়। অধ্যক্ষ মুহাম্মদ বেলাল উদ্দীন ১৯৮৪ সালের ১৬ই ডিসেম্বর মাদ্রাসার পশ্চিম দিকে বিল্ডিং সংলগ্ন একটি বটগাছ লাগিয়ে মাদ্রসার নামকরন স্মৃতিকে অক্ষুন্ন রেখেছেন।                   

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মুহাম্মদ বেলাল উদ্দীন ০১৭১৫২৭২৩৫৭ sabur1967@gmail.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোছাঃ আনোয়ারা খাতুন ০১৭১৫২৭২৩৫৭ bottolifjmfmadrasah@gmail.com
মুহাঃ আব্দুস ছবুর খান ০১৭২৫০১৪৭১৮ bottolifjmfmadrasah@gmail.com

শ্রেণী

ছাত্র

ছাত্রী

মোট

১ম

-

৩০

৩০

২য়

-

৩০

৩০

৩য়

-

২৭

২৭

৪র্থ

-

১৭

১৭

৫ম

-

২৫

২৫

৬ষ্ঠ

-

৩২

৩২

৭ম

-

৪২

৪২

৮ম

-

৩৫

৩৫

৯ম

-

৪১

৪১

১০ম

-

২৩

২৩

আলিম ১ম

--

৪০

৪০

আলিম ২য়

-

২৭

২৭

ফাজিল ১ম

-

৩০

৩০

ফাজিল ২য়

-

১৭

১৭

ফাজিল ৩য়

-

১৭

১৭

মোটঃ

-

৪৩৩

৪৩৩

৯৩.৯৩%

বর্তমানে পরিচালনা কমিটি নেই।

বিগত ৫ বছরের পরীক্ষার ফলাফলঃ

সাল

দাখিল

আলিম

ফাজিল

পরীক্ষার্থী

পাশ

হার

পরীক্ষার্থী

পাশ

হার

পরীক্ষার্থী

পাশ

হার

২০০৭

৫২

৪৪

৮৫%

২৩

১৩

৫৭%

১১

৭৩%

২০০৮

২৯

২৫

৮৭%

২৫

২৪

৯৬%

৪৩

৪৩

১০০%

২০০৯

২০

১২

৬০%

৩০

২৭

৫৭%

৪২

৩৮

৯১%

২০১০

২১

১৯

৯১%

৩২

৩২

১০০%

৫৩

৫১

৯৭%

২০১১

৩৩

৩১

৯৪%

২৪

২৪

১০০%

৬২

-

-

ক) রোম্মানী জান্নাত, আলিম পরীক্ষা ২০০৮ সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি লাভ করে।

খ) মোছান্নেফা মাহবুবা জেডিসি-২০১১-তে ট্যালেন্টপুলে,

গ) নাছিমা খাতুন, জেডিসি-২০১১-তে ট্যালেন্টপুলে,

ঘ) রিফাত তাসনিয়া, জেডিসি-২০১১-তে সাধারণ গ্রেডে এবং

ঙ) আকলিমা খাতুন, জেডিসি-২০১১-তে সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি লাভ করে।

মাদ্রাসাঃ জেলা পর্যায়ে ১৯৮৪ সালে ‘‘শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান’’ এবং ‘‘অধ্যক্ষ’’, ১৯৯৫ সালে জাতীয় পর্যায়ে ‘‘শ্রেষ্ঠ শিক্ষক’’ হিসাবে স্বর্ণপদক প্রাপ্ত হন। এ ছাড়া নারী শিক্ষা বিস্তারে ২০০৩ সালে ১ লক্ষ ২৫ হাজার টাকার এওয়ার্ড পান। এলাকায় আরোও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থাকা স্বত্ত্বেও এই মাদ্রাসায় ছাত্রীসংখ্যা পর্যাপ্ত পর্যায়ে পৌঁচেছে। মুহাম্মদ বেলাল উদ্দিন জাতীয় পর্যায়ে ১৯৯৫ সালে ‘‘শ্রষ্ঠ শিক্ষক’’ ছাড়াও ৩ বার জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হন। সহকারী মৌলানা মোঃ ফেরদৌসুল হক উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হন। ২০০৬ সালে দাখিল পর্যায়ে ২ জন গোল্ডেন সহ ৬ জন GPA-5 পেয়েছে। ২০০৭ সালে ১জন,২০১০ সালে ৭জন এবং ২০১১ সালে ৪জন GPA-5 পেয়েছে। 

শতভাগ পাশ, ডিজিটাল শ্রেণীকক্ষ স্থাপন এবং বি এ (সম্মান) সহ কামিল শ্রেণী চালু করার পরিকল্পনা আছে।

ঢাকা হতে জয়পুরহাট মহাসড়ক সংলগ্ন বটতলী বাসস্টান্ড, বটতলী বাজার হতে ১০০ মিটার দক্ষিণ-পশ্চিম পার্শ্বে অবস্থিত মাদ্রাসাটি। নদীপথে তুলশীগঙ্গা নদী হতে ৫০ গজ দক্ষিণ পার্শ্বে অবস্থিত।